সোমবার, এপ্রিল ১৫, ২০২৪

সুন্দরগঞ্জের তারাপুর ইউনিয়ন গ্রাম আদালতে ৫ মাসে ৪৬ মামলা নিষ্পত্তি

আপডেট:

হযরত বেল্লাল,  সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ 
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার তারাপুর ইউনিয়নে গ্রাম আদালতের মাধ্যমে গত ৫ মাসে ৪৬টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। চলমান রয়েছে ৩টি মামলা। এরমধ্যে ফৌজদারী ১৪টি, দেওয়ানী ৩২টি। ইতিমধ্যে ব্যাপক সারা জাগিয়েছে তারাপুর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালতের কার্যক্রম। অভিজ্ঞ মহল বিষয়টিকে ইতবাচক মনোভাব হিসেবে দেখছেন। মামলার রায়প্রাপ্ত সাধারণ মানুষ অনেক খুশি।
 জানা গেছে, স্থানীয় সরকারে বিভাগের পরিপত্র মোতাবেক ইউপি চেয়ারম্যানগণ গ্রাম আদালতের মাধ্যমে গ্রাম-গঞ্জের ছোটখাট বিরোধসমুহ নিরসন করে আসছেন। অনেক চেয়ারম্যান বিষয়টিকে আন্তরিকার সহিত গ্রাম আদালত পরিচালনা করলেও অনেকে তা করছেন না।
উপজেলার তারাপুর ইউনিয়নের তিনবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম দীর্ঘদিন হতে অত্যন্ত নিষ্টার সাথে জেলা আদালতের আদলে গ্রাম আদালতের মাধ্যমে মামলা পরিচালনা ও নিষ্পত্তি করে আসছেন। গ্রাম আদালত পরিচালনায় সহযোগিতা করছেন গ্রাম আদালত সহকারি মমেদা খাতুন। সপ্তাহের প্রতি শনিবার গ্রাম আদালত পরিচালিত হয়।
সুবিধাভোগী আকবর আলী জানান, গ্রাম আদালতের মাধ্যমে তিনি জমি-জমার একটি বিরোধের রায় পেয়েছেন। এতে তার সামন্য টাকা খরচ হয়েছে। তিনি মনে করেন ন্যায় বিচার পেয়েছেন। কোর্ট কাচারিতে মামলা করতে গেলে অনেক টাকা লাগত। পাশাপাশি ঝামেলা পোয়াতে হত অনেক।
গ্রাম আদালত সহকারি মমেদা খাতুন জানান, আদালতের আদলে তারা মামলা পরিচালনা করে থাকেন। মামলা খরচ বাবদ ৩০০ টাকা নেয়। গ্রাম পুলিশের মাধ্যমে বাদী ও বিবাদীকে নোটিশ করা হয়। একদিনে নিষ্পত্তি না হলে পরবর্তীতে তারিখ নির্দারণ করা হয়।
ইউপি চেয়ারম্যান জানান, বাদী ও বিবাদী বক্তব্য শুনে বোর্ড গঠনের মাধ্যমে সুষ্ঠু ও ন্যায় সংগত বিচার করা হয়। কোন প্রকার হয়রানি করা হয় না। গত ৫ মাসে ৪৬টি মামলা নিষ্পত্তি করা হয়েছে।
ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নিবার্হী অফিসার মো, মাসুদুর রহমান জানান, তারাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আন্তরিকতার সহিদ গ্রাম আদালত পরিচালনা করায় তাঁর ইউনিয়নে এটি সম্ভব হয়েছে। সকল চেয়াম্যানগণ এভাবে গ্রাম আদালত পরিচালনা করলে থানায় এবয় জেলা আদালতে মামলা অনেক কমে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:

সর্বাধিক পঠিত